,
শিরোনাম
জগন্নাথপুরে প্রবাসী সংগঠনের উদ্যোগে বন্যা দুর্গতদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ ক্ষমতায় গেলে কুইক রেন্টাল ও বিদ্যুৎ খাতে আইন বাতিল করবে জগন্নাথপুরের কলকলিয়ায় স্পেন প্রবাসী “KUDA” এর উপদেষ্টা আব্দুল গনি এনাম সংবর্ধিত “KUDA” এর যুগ্ম সম্পাদক ছোট মিয়া’র নামাজে জানাজা আজ জগন্নাথপুরে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালন ও সেলাই মেশিন বিতরণ বিশ্ববাজারের সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিপিসির আমদানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে জ্বালানী তেলের মূল্য সমন্বয় হাজি রওনকুল ইসলাম ও মাওলানা মুন্সিফ আলী রহ.চেতনাকে সামনে রেখে খেলাফতের কাজ কে তরান্বিত করতে হবে : মাওলানা রেজাউল করিম জালালী জগন্নাথপুরের সামাজিক সংগঠন “KUDA” এর উদ‌্যোগে ফ্রি চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরন জগন্নাথপুরের কলকলিয়ার খোকন হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন দেশে মুসলিম জনগোষ্ঠী ৯১.০৪ শতাংশ, হিন্দু ৭.৯৫ শতাংশ

কোরবানির জন্য কত টাকা থাকতে হবে ?

মাওলানা মুফতি আবু সাঈদ সৈয়দ :- ‘পরিবারের খরচ মেটানোর পর যদি জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখে নির্ধারিত পরিমাণ সোনা বা রুপা থাকে কিংবা বাজার দর অনুযায়ী সোনা-রুপার সমপরিমাণ টাকা থাকে তবে, ওই ব্যক্তির জন্য কোরবানি করা আবশ্যক।’ তাহলে কোরবানির জন্য সোনা-রুপা বা টাকার পরিমাণ কত থাকতে হবে?

কোরবানি আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের মাধ্যম। আর্থিক ও আত্মিক ইবাদত এটি। মহান আল্লাহর জন্য একনিষ্ঠ নিয়তে নির্ধারিত পরিমাণ সম্পদের মালিকের ওপর কোরবানি করা আবশ্যক।

হজের মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখে কোরবানি দিতে হয়। হজ জীবনে একবার ফরজ হলেও কোরবানি প্রতি বছর একবার দিতে হয়। অনেকেই জানেন না যে, কী পরিমাণ সম্পদ বা টাকা থাকলে কোরবানি দেওয়া আবশ্যক। এ বিষয়ে ইসলামের সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা রয়েছে।

তা হলো- জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ কোরবানির পশু জবাই করতে হয়। কোরবানি দেওয়ার জন্য শর্ত হলো এ দিনগুলোতে পরিবারের জীবিকা নির্বাহের খরচ ছাড়া অতিরিক্ত নেসাব (নির্ধারিত) পরিমাণ সম্পদ বা টাকার মালিক হলেই তার ওপর কোরবানি আবশ্যক।

সোনা-রুপার নেসাব

জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখে কারও কাছে সাড়ে ৭ তোলা/ভরি সোনা কিংবা সাড়ে ৫২ তোলা/ভরি রুপা থাকলে কোরবানি আবশ্যক। কোরবানি আবশ্যক হওয়ার জন্য এ পরিমাণ সোনা-রুপা এক বছর ব্যক্তির মালিকানাধীন থাকতে হবে এমন কোনো শর্ত প্রযোজ্য নয়।

নেসাব পরিমাণ সোনার মূল্য

কেউ যদি সোনার পরিমাণকে নেসাব ধরে তবে তাকে সাড়ে ৭ ভরি/তোলা সোনার মূল্যের উপর টাকার পরিমাণ হিসাব করতে হবে। যেমন-

২২ ক্যারেট মানের সোনার প্রতি ভরি/তোলা (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) দাম- ৮০ হাজার টাকা হিসাবে সাড়ে ৭ ভরির দাম- ৬ লাখ টাকা।

২১ ক্যারেট স্বর্ণের প্রতি ভরির (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) দাম ৭৬ হাজার টাকা হিসাবে সাড়ে ৭ ভরি স্বর্ণের দাম- ৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা।

১৮ ক্যারেটের স্বর্ণের প্রতি ভরির (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) দাম ৬৬ হাজার টাকা হিসাবে সাড়ে ৭ ভরি স্বর্ণের দাম- ৪ লাখ ৯৫ হাজার টাকা।

সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম- ৫০ হাজার টাকা হিসাবে সাড়ে ৭ ভরি স্বর্ণের দাম- ৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা (স্বর্ণের এ দাম ওঠা নামা করতে পারে। সেক্ষেত্রে বাজার দর হিসাব করে নেসাব নির্ধারণ করতে হবে।)

সুতরাং যারা স্বর্ণের নেসাবে কোরবানি দেবেন, তাদের জন্য প্রায় ৪ লাখ টাকা বা সমপরিমাণ সম্পদ জিলহজ মাসের ১০-১২ তারিখ (এ তিন দিন) মালিকানায় থাকলে কোরবানি দেওয়া আবশ্যক।

নেসাব পরিমাণ রৌপ‌্যের মূল্য

কেউ যদি রুপার নেসাবে কোরবানি দিতে চায় তবে তাকে সাড়ে ৫২ ভরি/তোলা রুপার মূল্যের উপর টাকার পরিমাণ হিসাব করতে হবে। তাহলো-

২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার মূল্য ১ হাজার ৫১৬ টাকা হিসাবে সাড়ে ৫২ তোলা রুপার দাম হয় ৭৯ হাজার ৫৯০ টাকা।

২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার দাম ১ হাজার ৪৩৫ টাকা হিসাবে সাড়ে ৫২ তোলা বা ভরির দাম হয়- ৭৫ হাজার ৩৩৭ টাকা পঞ্চাশ পয়সা।

১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার দাম ১ হাজার ২২৫ টাকা হিসাবে সাড়ে ৫২ তোলা/ভরির দাম হয়- ৬৪ হাজার ৩১২ টাকা পঞ্চাম পয়সা।

এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি রুপার দাম ৯৩৩ টাকা হিসাবে সাড়ে ৫২ তোলা/ভরির দাম ৪৮ হাজার ৯৮২ টাকা পঞ্চাশ পয়সা।

তাই কারো কাছে যদি সর্বনিন্ম ৫০ হাজার টাকাও থাকে তবে তাকে রুপার নেসাব পরিমাণ অর্থের বিধান অনুযায়ী কোরবানি দিতে হবে।
সুতরাং পরিবারের খরচ মেটানোর পর যদি জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ নির্ধারিত পরিমাণ সোনা বা রুপা থাকে কিংবা বাজার দর অনুযায়ী সমপরিমাণ টাকা অর্থাৎ ৫০ হাজার থেকে ৬ লাখ টাকা থাকে তবে ওই ব্যক্তির জন্য কোরবানি করা আবশ্যক।

’রদ্দুল মুহতার’ গ্রন্থে এসেছে, ‌সুস্থ মস্তিষ্ক, প্রাপ্তবয়স্ক, মুসলিম নর-নারী ঋণমুক্ত থাকা অবস্থায় প্রয়োজনের অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হলেই তার ওপর কোরবানি করা ওয়াজিব। এক্ষেত্রে কোরবানি না করলে ওয়াজিব তরকের দায়ে গুনাহগার হবেন।

’বাদায়েউস সানাঈ’ গ্রন্থে এসেছে, ‌‌নাবালেগ; পাগল; যদি নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকও হয় তাদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব নয়। তবে তাদের অভিভাবক নিজ সম্পদ দ্বারা তাদের পক্ষে থেকে কোরবানি করলে তা বিশুদ্ধ হবে।

’দুররুল মুখতার’ গ্রন্থে এসেছে, মুসাফিরের ওপর কোরবানি ওয়াজিব নয়। মুসাফির দ্বারা উদ্দেশ্য হলো যে ব্যক্তি কমপক্ষে ৪৮ মাইল সফরের নিয়তে নিজ এলাকা ত্যাগ করেছে।

’বাদায়েউস সানাঈ’তে এসেছে, কোরবানি ওয়াজিব হওয়ার জন্য কোরবানির ৩ দিনই মুকিম থাকা জরুরি নয়। বরং কেউ যদি এ ৩ দিনের শুরুর দিকে মুসাফির থাকে আর শেষ দিকে মুকিম হয়ে যায় তবে তার নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলে তার কোরবানি ওয়াজিব হবে। আর কেউ যদি এ ৩ দিনের শুরুতে মুকিম থাকে এবং শেষের দিকে মুসাফির হয়ে যায় তাহলে তার ওপরে কোরবানি ওয়াজিব হবে না।’
আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকদেরকে যথাযথভাবে কোরবানি আদায় করার মাধ্যমে তার নৈকট্য অর্জনের তাওফিক দান করুন।
আমিন।

লেখক
মাওঃ মুফতি মোঃ আবু সাঈদ সৈয়দ।
সভাপতি
বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল ইসলাহ, দিরাই উপজেলা শাখা।
দিরাই, সুনামগঞ্জ।

     More News Of This Category

ফেসবুকে আমরা

 

 

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ভোর ৪:১৭
  • দুপুর ১২:০৬
  • বিকাল ৪:৩৮
  • সন্ধ্যা ৬:৩৫
  • রাত ৭:৫৩
  • ভোর ৫:৩৩